jamdani

সুস্থ থাকতে তোল্লাই দিন তেলাকুচকে

বাড়ির আনাচে কানাচে অনেক আগাছা জন্মে থাকে। সেই আগাছার মধ্যে একটু ভালো করে লক্ষ্য করলে আমরা অনেকেই দেখে থাকি লতানো এক প্রকারের উদ্ভিদ। যার পাতা ও কাণ্ড গাঢ় সবুজ রঙের, ফুল সাদা ও ফল পেকে গেলে টকটকে লাল রঙের হয়ে যায়। পঞ্চভূজ আকারের পাতা বিশিষ্ট বহুবর্ষজীবী এই উদ্ভিদটির নাম তেলাকুচ। যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। এটিতে প্রচুর পরিমাণ বিটা-ক্যারোটিন থাকায় আমাদের শরীরে মারাত্মক অনেক রোগ থেকে মুক্তি দিয়ে থাকে। কিন্তু কী কী রোগ থেকে এই উদ্ভিদ মুক্তি দিয়ে থাকে তা আমাদের অনেকেরই অজানা। তাই আজ রইল এই উদ্ভিদটির ওষুধি গুণাগুণ সম্পর্কে আলোচনা।

 

তেলাকুচের ওষুধি গুণাগুণঃ

ব্রণ ও ফোঁড়া থেকে মুক্তি পেতে তেলাকুচের কামালঃ এই পাতার রস ফোঁড়া ও ব্রণ সারাতে জাদুর মতো কাজ করে। প্রতিদিন নিয়ম করে সকাল ও বিকেলে এই পাতার রস লাগালে  মুক্তি পাওয়া যায়।

পা ফোলা রোগে তেলাকুচের জাদুঃ এই  রোগ অনেকেরই হয়ে থাকে। দীর্ঘ সময় পা ঝুলিয়ে বসে থাকলে এই সমস্যা দেখা দেয়। সেক্ষেত্রে তেলাকুচার মূল ও পাতা ছেঁচে রস বের করে তা  ৪ থেকে ৫ চা চামচ প্রতিদিন পান করুন। এতেই মুক্তি সমস্যার সমাধান মিলবে।

জন্ডিস নিরাময়ে তেলাকুচের ওষুধি গুণাগুণঃ এই রোগটি হলে অনেকেই ভয় পেয়ে যান। তবে ভয় না পেয়ে ভরসা রাখুন তেলাকুচ গাছের উপর। যা খুবই উপকারী। জন্ডিস সারাতে এই উদ্ভিদের মূল ছেঁচে রস তৈরি করে নিন। তারপর প্রতিদিন ভোরবেলা ঘুম থেকে উঠে ১/২ কাপ পরিমাণ এই রস পান করুন। এবং কয়েক দিনের মধ্যেই গুণাগুণ লক্ষ্য করুন।

ডায়াবেটিসে তেলাকুচঃ বিভিন্ন কারণে আমাদের দেহে এই রোগটি বাসা বাঁধে। যা ক্রমশ শরীরকে অকেজ করে দিতে থাকে। তাই যাদের এই রোগটি রয়েছে, তাদের অবশ্যই নিজেদের শরীরের বিশেষ খেয়াল রাখা খুব উচিত। বিশেষ খাওয়া-দাওয়ার উপরেও নজর দেওয়া জরুরি। তাই এই রোগটি নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রতিদিন সকাল ও বিকেলে ১/২ কাপ পরিমাণে পান করুন তেলাকুচ গাছের কান্ডসহ পাতা ছেঁচে রস। এর ফলে এই রোগটি নিয়ন্ত্রণে থাকবে আপনার।

শ্বাসকষ্টের ও কাশির সমস্যায় তেলাকুচের ওষুধি গুণাগুণঃ অনেকেই শ্বাসকষ্ট ও কাশির উপশমে প্রায়শই ভুগে থাকেন। সেক্ষেত্রে প্রতিদিন দু’বেলা তেলাকুচের মূল ও পাতার রস হালকা গরম করে ৪ থেকে ৫ চা চামচ পাঁচ থেকে সাত দিন পান করলে শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তি মিলবে। পাশাপাশি কাশির ক্ষেত্রে একই ভাবে এই পাতার ও মূলের রস হালকা গরম করে ৩ থেকে ৪ চামচ মধূর সঙ্গে পান করলে এই সমস্যা থেকে মিলবে সমাধান।

 

Trending

Most Popular


Would you like to receive notifications on latest updates? No Yes