jamdani

কীভাবে বেনারস থেকে বাংলায় এসে বাঙালির বিয়ের শাড়ি হয়ে উঠল ‘বেনারসি’?

‘বেনারসি’ শব্দটি শুনলেই প্রথমেই মনে আসে বিয়েবাড়ির কথা। কনের সাজে, বেনারসি শাড়ি এক অপূর্ব সংযোজন। মোটের ওপর বেনারসি ছাড়া বাঙালির বিয়ে ভাবাই যায় না। অনেকের কাছেই বেনারসি একটা ইমোশন, খানিকটা নস্টালজিয়াও বটে।

তবে বেনারসি মানেই কিন্তু শুধু বিয়ের সাজ বা কনের শাড়ি নয়। সিল্কের মোস্ট পপুলার বেনারসি ছাড়াও আরও নানা রকমের বেনারসি আছে, যা আপনি বেছে নিয়ে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পরতেই পারেন। এতে আপনাকে আরও রুচিশীল ও আকর্ষণীয় দেখাবে।

এসব তো বেনারসি পরিধানের পরের কথা। আজ আমাদের আলোচ্য বিষয় তা নয়। আজ একটু অতীতের পথে হাঁটব আমরা। জানেন কি বেনারসির ইতিহাস কী? কোথায়, কারা প্রথম তৈরি করেন এই বেনারসি?

ইতিহাসের বুকে কান পাতলে শোনা যায়, বেনারসি শাড়ি প্রথম তৈরি হয় উত্তরপ্রদেশের বেনারসে। তাঁত নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে গিয়েই বোনা হয়েছিল এই শাড়ি। এটা যে সময়ের কথা তখন বেনারসের বেশিরভাগ তাঁতিই ছিলেন মুসলিম। কিন্তু ঠিক কবে থেকে তাঁরা বেনারসি শাড়ি তৈরি করে আসছেন তা জানা যায়নি।

বেনারসি নিয়ে অনেক কথাই প্রচলিত আছে। যেমন, এই শাড়ি যারা বানিয়েছিলেন, সেই তাঁতিদের পূর্বপুরুষরা ছিলেন আনসারী। প্রচলিত আছে ইসলাম ধর্মের প্রবর্তক হজরত মহম্মদ মক্কা থেকে মদিনায় যাওয়ার সময়ে আনসারী সম্প্রদায়ের কাছে আশ্রয় নেন। পরবর্তীতে এই সম্প্রদায় ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে এবং এর প্রচারেও অংশ নেয়। ১৯৪৭ সালে দেশভাগের সময় বেনারস থেকে প্রায় ৩০০টি মুসলিম তাঁতি পরিবার তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান তথা বর্তমান বাংলাদেশে চলে যায়। তারা মূলত ঢাকার মিরপুর ও পুরনো ঢাকায় বাস করতে শুরু করে।

ইতিহাস বলছে সেই তাঁতিরা পূর্ব পাকিস্তানে যাওয়ার পরেও এই পেশাতেই নিযুক্ত ছিলেন। অভিনব ডিজাইন, উন্নত রুচি এবং নিপুণ বুননের কারণে বাংলাদেশসহ অন্যান্য দেশেগুলিতেও ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায় তাদের শাড়ি। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে স্থানীয়রাও এই কাজে যোগদান করেন। আস্তে আস্তে তাঁতির সংখ্যা বাড়তে থাকে।

পরবর্তীতে কারখানাগুলো পুরনো ঢাকা থেকে সরিয়ে মিরপুরে নিয়ে আসা হয়। বর্তমানে ঢাকার মিরপুরের ১১ ও ১২ নম্বর বেনারসি পল্লী হিসেবে ব্যাপকভাবে পরিচিত। ধীরে ধীরে বাংলার লোকেরা এর প্রতি আকৃষ্ট হয় বিপুল পরিমাণে। যুগে যুগে এর নকশায় এসেছে ভিন্নতা। এখন মানুষের কাছে বেনারসি শাড়ি মানেই এক ধরনের আভিজাত্যের ছোঁয়া। পূর্ববঙ্গ, পশ্চিমবঙ্গ সহ সর্বত্র এখন এই চাহিদা ও গ্রহণযোগ্যতার মূলে কিন্তু রয়েছে তাঁতশিল্পীদের নতুন ডিজাইন তৈরির উদ্যোগ। তাই এই ইতিহাস যে খুব প্রাসঙ্গিক, তা আর আলাদা করে বলে দিতে হয় না।

Trending

Most Popular


Would you like to receive notifications on latest updates? No Yes