jamdani

Bigenner-দের জন্য সহজ কয়েকটি ট্রেক রুট (পর্ব – ২)

উত্তরবঙ্গের একটি জনপ্রিয় ট্রেক রুট লেপচাখা। জঙ্গল, ফোর্ট, বাংলোয় দিনযাপন, ছোট্ট পাহাড়ি উপত্যকা আর ঘিরে থাকা ধ্যানগম্ভীর পাহাড়- সব মিলিয়ে অপূর্ব অভিজ্ঞতার অজস্র নুরি-পাথর ছড়িয়ে আছে লেপচাখা ট্রেক রুটে। সামান্য একটু কষ্ট করে চড়াইউতরাই পেরোতে পারলে আপনার সামনে ঠিক যেন পিকচার পোস্টকার্ড।

লেপচাখা যেতে গেলে প্রথমেই যেতে হবে আলিপুরদুয়ার। ট্রেন সফরে আলিপুরদুয়ার পৌঁছে প্রথমে আপনাকে সানতারাবাড়ি হয়ে যেতে হবে বক্সা ফোর্ট। আলিপুরদুয়ার থেকে ৩৬ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে সানতাবাড়ি পৌঁছাবেন গাড়িতেই। এই সানতাবাড়ি থেকেই পায়ে হেঁটে অভিযান শুরু করুন। জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে খানিক রোমাঞ্চ, খানিক গা ছমছমে অনুভূতির স্বাদ নিতে নিতে পৌঁছে যান বক্সাদুয়ার ফরেস্ট বাংলোতে। দুপুরের খাবার সারুন সেখানেই। এরপর বেরিয়ে পড়ুন বক্সা ফোর্ট দেখতে। থাকুন ধুবকো হাট বা জাঙ্গল বাংলোতে।

পরের দিন আবার যাত্রা শুরু করুন। এবার যেতে হবে লেপচাখা, ভায়া তাশিগাঁও। বক্সা ফোর্ট থেকে তাশিগাঁও পৌঁছান হেঁটে। তাশিগাঁও হল রূপম ভ্যালি ট্রেইলের উচ্চতম গ্রাম। এই তাশিগাঁও থেকে পুনরায় হাঁটা শুরু করে পৌঁছে যান লেপচাখায়।

লেপচাখা মানেই রানী সন্দর্শন। কেন?

লেপচাখাকেই যে বলা হয় ‘কুইন অফ দ্য ডুয়ার্স’। এখানে পৌঁছে চোখ যেন জুড়িয়ে যাবে। সত্যিই যেন মনে হবে এক বিশ্বসুন্দরী রানী রূপের ডালি সাজিয়ে আনমনে বসে রয়েছে আপনারই অপেক্ষায়। আপনি তার রূপ থেকে চোখ ফেরাতে পারবেন না। চারিদিক ঘিরে থাকা পাঁচ পাহাড় আর তার মাঝে ছোট সবুজ উপত্যকা। আরও এক অসামান্য দৃশ্য আপনার মনে ফ্রেমবন্দি হয়ে থাকবে। ১২টি নদীর সর্পিল ধারা চোখে পড়বে এখানেই। ডুয়ার্স জুড়ে বয়ে চলা এই ১২টি নদী সাপের মতো এঁকেবেঁকে বয়ে চলেছে। এই দৃশ্য দেখার মুগ্ধতা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না। একযোগে ১২ জন সহোদরা যেন নূপুর পায়ের ছন্দে মাতোয়ারা করে চলেছে চারিদিক।

একটা দিন থেকে যান ওখানেই, আর ধুবকা জনজাতির আতিথেয়তায় মুগ্ধ হয়ে পড়ুন। এখানেও থাকতে হবে হোম-স্টেতে। পরের দিন ফিরতি পথে মন কেমন।

Trending

Most Popular


Would you like to receive notifications on latest updates? No Yes