jamdani

জানেন কি বিয়ের সাতটি পাকের মাহাত্ম্য?

বিবাহ এক পবিত্র বন্ধন। যেখানে দু’টি মানুষের আত্মার মিলন হয়। শাস্ত্র মতে এই বন্ধন সাত জন্মের। আর এই প্রতিজ্ঞাকে আরও বেশি মজবুত করতেই সাত পাক একসঙ্গে ঘোরার নিয়ম বিয়েতে। অগ্নিকে সাক্ষী রেখে একে অপরের কাছে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হন বর ও কনে। মন্ত্রচ্চারণের সময় কী বলা হচ্ছে তা সকলে বুঝে উঠতে পারেন না। আসুন জেনে নেওয়া যাক মন্ত্রচ্চারণের সঙ্গে সঙ্গে সাত পাকের মাহাত্ম্য কী-

বিয়েতে পবিত্র অগ্নির সামনে দাঁড়িয়ে বর, প্রথম পাকে ঘোরার সময় মন্ত্রচ্চারণের মাধ্যমে কনেকে কথা দেন যে বিয়ের দিন থেকে কনের ভরণ-পোষণের দায়িত্ব তার। উত্তরে কনে প্রতিজ্ঞা করেন যে সংসারের সুখের জন্য খুটিনাটি বিষয় তার দেখভালে থাকবে। দ্বিতীয় পাক ঘোরার সময়ে দু’জনে প্রতিজ্ঞা করেন যে জীবনে যতই উত্থানপতন আসুক না কেন, তারা একে অপরের সঙ্গে থাকবেন। বর কনেকে বলেন যদি কোনও বিপদ আসে, তাহলে তিনি তার স্ত্রীকে রক্ষা করবেন। উত্তর কনে বরকে কথা দেন সর্বক্ষণ স্বামীকে তিনি সাহস ও শক্তি যোগাবেন।

সাত পাকের তৃতীয় পাকে বর এবং কনে একে অন্যের পার্থিব সুখের দিকে নজর দেবেন বলে প্রতিজ্ঞা করেন। চতুর্থ পাক ঘোরার সময়ে বর কনেকে কথা দেন যে,  তিনি তার স্ত্রীর সম্মান রক্ষা করবেন এবং কনে বরের কাছে প্রতিজ্ঞা করেন যে সারাজীবন তিনি তাঁর স্বামীকে ভালবাসবেন, অন্য সব পুরুষরা তার কাছে গৌন।

একজনের অপরজনের প্রতি ভালবাসা এবং সম্মান প্রদর্শন করার প্রতিজ্ঞা হয় পঞ্চম পাকটিতে। সঙ্গে সঙ্গে বর এবং কনে একে অপরের সবচেয়ে কাছের বন্ধু হয়ে ওঠার অঙ্গিকারও করেন। ষষ্ঠ পাক নেওয়ার সময়ে সারাজীবন একে অপরের সঙ্গে থাকবেন, এই প্রতিজ্ঞাই আরও দৃঢ়ভাবে নেন দু’জনে। সাত পাকের শেষ পাকটি নেওয়ার সময়ে বর বলেন, এখন থেকে আমরা স্বামী-স্ত্রী হলাম। কনেও তাতে সহমত দেন। এভাবেই যুগের পর যুগ জেনে বা অজান্তে হিন্দু বিয়ের রীতি অনুযায়ো বর ও বউ আগামী জীবনের জন্য সংকল্প নেন সাত পাকের মাধ্যমে।


Trending

Most Popular


Would you like to receive notifications on latest updates? No Yes