jamdani

মঙ্গলগ্রহে উড়ল হেলিকপ্টার!

আজব হলেও সত্যি! আর সেই মঙ্গলের মাটিতে বসেই শব্দ ও ভিডিও রেকর্ড করে পাঠালো নাসার রোভার ‘পার্সিভিয়ার‍্যান্স’। আর সেই হেলিকপ্টার ‘ইনজেনুইটি’র শব্দ পৃথিবীতে বসে শুনল মানুষ। একটা ছোট্ট ফড়িঙয়ের মতো দেখতে এই হেলিকপ্টার উড়ল মঙ্গলের আকাশে। অনেকটা কল্পবিজ্ঞানের গল্প মনে হলেও এই ব্রহ্মান্ডে অনেক কিছুই ঘটতে দেখা যায়।
বাস্তবে ‘ইনজেনুইটি’-র শব্দটুকু শুনতে পাওয়াই বিজ্ঞানীদের কাছে এক অনন্য অভিজ্ঞতা। এই প্রথম এমন অভিজ্ঞতা হল পৃথিবীবাসীরও।
চাঁদে কোনও বাতাস নেই। সেখানে তাই এমনটি সম্ভব নয়। কিন্তু পৃথিবীর চেয়ে অনেক হালকা হলেও লালগ্রহে বাতাস আছে। তাতে ভর করেই উড়তে পেরেছে ‘ইনজেনুইটি’। আর সেই বাতাসে ভেসেই তার ডানার শব্দ পৌঁছেছে ৮০ মিটার দূরের রোভারে, তার ‘সুপারক্যাম’-এ। এটি ছিল তার চতুর্থ উড়ান। উড়েছে মোট ২৬২ মিটার পথ।
মঙ্গলের বাতাস পথিবীর বাতাসের তুলনায় ১ শতাংশ ঘন। ফলে হালকা, মাত্র ১.৮ কেজির হেলিকপ্টারটিকে ওড়ানোর জন্যও এর ছ’টি ডানাকে পৃথিবীর যে কোনও ড্রোন বা হেলিকপ্টারের চেয়ে অনেক বেশি জোরে ঘোরাতে হয়, মিনিটে প্রায় ২৪০০ পাক। মঙ্গলের বায়ুমণ্ডলকে বোঝার ক্ষেত্রে সেই ডানা ঘোরার শব্দকে ‘সোনার খনি’ বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। গত ১৯ এপ্রিল এটি প্রথম বার ওড়ে। পঞ্চম বার উড়েছে শুক্রবার। ‘ইনজেনুইটি’-র এই সব উড়ানের অভিজ্ঞতাই এক দিন মঙ্গলে মানুষের বিচরণে সাহায্য করবে। হেঁটে বা রোভারে যাওয়া সম্ভব নয় যেখানে, পৌঁছে যাওয়া যাবে উড়ে।

Trending

Most Popular


Would you like to receive notifications on latest updates? No Yes