jamdani

ত্বকের যত্নে চা-এর ব্যবহার

সকালের এক কাপ গরম চা আমাদের শরীরকে চাঙ্গা করে দেয়। দিনের শুরুতে এই এনার্জি পানীয় আমাদের কাজের শক্তি যোগায়। শুধু সকালেই কেন? দিনের যে কোনও সময়েই আসলে চা চলতে পারে। কিন্তু চা কি শুধুমাত্র পানীয় হিসেবেই ব্যবহার হয়? চা কেবল আপনাকে সতেজই রাখে না, আপনার ত্বকেও নিয়ে আসে লাবণ্য। চায়ের মধ্যে থাকা বিভিন্ন উপাদান ত্বকের যত্নে প্রাকৃতিক ভেষজ হিসেবে কাজ করে। ত্বকের যত্নে নিয়মিত ব্যবহার করতে পারেন চা পাতা।

জেনে নিন ত্বকের যত্নে কীভাবে ব্যবহার করবেন টি ব্যাগ-

টোনার
গরম জলে গ্রিন টি ব্যাগ ভিজিয়ে রাখুন। ঠাণ্ডা হলে লিকার দিয়ে ত্বক ধুয়ে নিন। চমৎকার প্রাকৃতিক টোনার হিসেবে কাজ করবে এটি।

ত্বক পরিষ্কার করতে
প্রতিদিনের ধুলা-ময়লায় আমাদের ত্বক অপরিষ্কার হয়ে পড়ে। নিয়মিত যত্ন না নিলে এটাই হতে পারে ত্বকের ক্ষতির কারণ। চা পাতা দিয়ে খুব সহজেই টোনার তৈরি করে ত্বক পরিষ্কার করতে পারেন। গরম জলে গ্রিন টি-ব্যাগ ভিজিয়ে ঠাণ্ডা হওয়ার পর লিকার দিয়ে ত্বক ধুয়ে নিন। চমৎকার প্রাকৃতিক টোনারের কাজ করে এটি। চায়ে উপস্থিত অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ত্বক উজ্জ্বল, নরম ও মসৃণ করে।

চোখের যত্নে
চোখের আশেপাশের ফোলা ভাব কমাতে পারে টি ব্যাগ। ২টি ব্যবহৃত গ্রিন টি অথবা ব্ল্যাক টি ব্যাগ নিন। সামান্য কুসুম গরম জলে টি ব্যাগ ডুবিয়ে রাখুন ৩০ সেকেন্ড। অতিরিক্ত জলে নিংড়ে চোখের উপর দিয়ে রাখুন ১৫ মিনিট। চায়ের পাতায় থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট চোখের আশেপাশের বলিরেখা ও ফোলা ভাব কমাবে।

ত্বকের কালোভাব দূর করতে
চায়ে উপস্থিত ট্যানিক অ্যাসিড ত্বকের কালো ভাব দূর করতে সাহায্য করে। এর জন্য একটা পাত্রে কিছুটা চা জলে ফোটাতে হবে। তারপর ঠাণ্ডা হলে একটা কাপড় চুবিয়ে আধঘন্টা আক্রান্ত স্থানে ধরে রাখতে হবে। এছাড়া রোদে ত্বক পুড়ে গেলেও সরাসরি টি ব্যাগ মুখে ব্যবহার করতে পারেন।

ব্রণ দূর করতে
চায়ের লিকার ঠাণ্ডা করে কয়েক ফোঁটা এসেনশিয়াল অয়েল মেশান। মিশ্রণটি বোতলে সংরক্ষণ করুন। প্রতিদিন তুলা ভিজিয়ে ব্রণের উপর চেপে ১০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এটি ত্বকের অতিরিক্ত তেল দূর করবে ও ব্রণ থেকে মুক্তি দেবে।

ফেসপ্যাক
২ ব্যাগ ব্যবহৃত গ্রিন টি ব্যাগ থেকে চা পাতা বের করে একটি পাত্রে রাখুন। ২ চা চামচ মধু, আধা চা চামচ দই ও লেবুর রস মেশান। মিশ্রণটি ত্বকে লাগিয়ে রাখুন ১০ মিনিট। এই ফেসপ্যাক ত্বক দাগহীন রাখবে।

স্ক্রাব হিসেবে
টি-ব্যাগ ফেলে না দিয়ে সেগুলো স্ক্রাব হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। এজন্য ব্যবহার করা টি-ব্যাগ শুকিয়ে ব্যবহার করুন। তারপর মুখ মুছে ময়শ্চারাইজার লাগান। চায়ে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আপনার ত্বক উজ্জ্বল,নরম ও মসৃণ করবে।

চুলের বৃদ্ধিতে
চা-এ ভিটামিন সি, ভিটামিন ই এবং প্যান্থেনল রয়েছে। যা চুলের বৃদ্ধি এবং চুলকে আরও মোলায়েম করতে সাহায্য করে। এজন্য কিছুটা জলে চা পাতা ফোটান। তারপর সেটাকে ঠান্ডা করুন এবং চা-এর পাতা ছেঁকে নিন। এবার সেই জলে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মেশান। শ্যাম্পুর পরে চুলে ব্যবহার করুন।

চুলের কন্ডিশনার হিসাবে
চা পাতা অনেকটা সময় জ্বাল দিয়ে গাঢ় ও ঘন লিকার তৈরি করে নিন। শ্যাম্পু করার পর চুলে ভালো করে লাগিয়ে নিন ও ৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। চাইলে জলে দিয়ে হাল্কা করে ধুয়ে নিতে পারেন, না ধুলেও সমস্যা নেই। চুল হয়ে উঠবে চকচকে আর মোলায়েম। আর সুবিধা হলো যে কোনও প্রকার চুলেই ব্যবহারযোগ্য।

চুল কালো করতে
চুলে কালো রঙ করতে হলে কিছুটা চা পাতা হেনার সঙ্গে মিশিয়ে ব্যবহার করুন। এতে পাকা চুল সাময়িক সময়ের জন্য কালো থাকবে।

Trending


Would you like to receive notifications on latest updates? No Yes