jamdani

চুল কেন পড়ে? রইল তাঁর সমাধান

অনেক সময় চুল আঁচড়াতে গেলেই হাতে উঠে আসে বেশ কিছু চুল। আর অমনি শুরু হয়ে যায় টেনশন। কিন্তু জানেন কি চুল পড়া একটা স্বাভাবিক বিষয়! তবে অতিরিক্ত চুল পড়ার সমস্যা দেখা দিলে বাড়তি পরিচর্যার প্রয়োজন পড়ে। নীচে রইল তারই কয়েকটি টিপস।

  • চুল ভালো রাখার অন্যতম চাবিকাঠি হল প্রোটিন গ্রহণ। কারণ চুলের গোড়া প্রোটিন দিয়ে তৈরি। চুল পড়ার অন্যতম কারণ হল প্রোটিনের স্বল্পতা। তাই প্রতি কেজি ওজনের জন্য ০.৮ গ্রাম প্রোটিন গ্রহণ করা উচিত।
  • ভিটামিন B 12, D-র স্বল্পতার কারণে চুল পড়ার সমস্যা দেখা দেয়। এই দুই উপাদান চুলের বৃদ্ধিতে ও মাথার ত্বকের সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে সহায়তা করে। মাংস ও দুধের তৈরি খাবারে ভিটামিন বি-১২ পাওয়া যায়। এই ভিটামিনের ঘাটতি দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে মাল্টিভিটামিন গ্রহণ করা যেতে পারে।
  • গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তন হয়, এতে চুল পড়ার সমস্যা হয়। গবেষকদের মতে, এই সময় চুল পড়া খুব স্বাভাবিক। তবে স্থায়ী চুল পড়ার সমস্যা দেখা দিলে চিন্তার বিষয়। সাধারণত, সন্তান জন্মদানের তিন থেকে চার মাসের মধ্যে এই ধরনের সমস্যার ঠিক হয়ে যায়।
  • চুল বাঁধার ধরন বা স্টাইলের কারণও চুল পড়ার জন্য দায়ী। সব সময় উঁচু করে খোঁপা করা বা পনিটেইল করা চুলের ক্ষতি করে। তাই চুল খুব বেশি শক্ত করে না বাঁধাই ভালো।
  • চুল রিবন্ডিং করা, রং করা, স্টাইলিংয়ের মাধ্যমে চুলের স্বাভাবিক ধরনের পরিবর্তন করা চুল পড়ার অন্যতম কারণ। চুলে যতটা সম্ভব কম রাসায়নিক উপাদান ব্যবহার করা উচিত।
  • মাথায় তেল লাগানোর আগে ভিটামিন-ই ক্যাপসুল ভেঙে তেলের সঙ্গে মিশিয়ে লাগিয়ে নিন। চুলের গোড়া পুষ্টি পাবে।
  • শুকনো হাতে সপ্তাহে চারদিন হালকা মাসাজ করুন চুলে। চুলের স্বাস্থ্য ভালো থাকবে। মাথায় রক্ত সঞ্চালন ভাল হবে।
  • হেয়ার সিরাম চুলের যত্নে দারুন কাজ করে। শ্যাম্পু করার পর চুল শুকিয়ে গেলে হেয়ার সিরাম স্প্রে করে নিন।
  • সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিন ঘাড় থেকে চুল উলটে আঁচড়ে নিন। এতে রক্তসঞ্চালন বেড়ে যায়।

Trending


Would you like to receive notifications on latest updates? No Yes