jamdani

চুলের যত্ন নিন প্রিয়জনেরও

শুধুমাত্র নিজের চুলের কথা ভাবলে হবে, প্রিয়জনের কথাও তো ভাবতে হবে। কারণ অধিকাংশ ছেলেদের ক্ষেত্রেই অগোছালো ভাব রয়েছে।আর চুলে তেল তো নৈব নৈব চ। বাজারে ছেলেদের চুলের উপযোগী বিভিন্ন শ্যাম্পু পাওয়া যায়। কিন্তু সপ্তাহে কয়দিন শ্যাম্পু করতে হবে, চুলের ধরণের সাথে মিলিয়ে কি ধরণের শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হবে এই ব্যাপারগুলো অনেকেই জানে না। উলটে অনেকে আজেবাজে কিংবা চুলের সাথে সামঞ্জস্যহীন ব্র্যান্ড ব্যবহার করার কারণে চুলের আরো ক্ষতি করে ফেলে। তাই নিজের চুলের ধরণের সাথে মিলিয়ে ভাল একটি শ্যাম্পু বেছে দিন। আর তাঁদের জানিয়ে দিন এই টিপসগুলো-

• শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনার ব্যবহারে চুল ঝরঝরে হয়ে ওঠে। তাই শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হবে। কন্ডিশনার এর জায়গায় লেবুর রস দিয়েও চুল ধুয়ে নিতে পারেন। কন্ডিশনার ব্যবহারের ক্ষেত্রে কন্ডিশনার যেন চুলের গোঁড়া ও মাথার ত্বকে না লেগে থাকে সেটাও খেয়াল রাখবেন।
• মাথায় তেল লাগানোর সময় বা শ্যাম্পু করার সময় আঙ্গুল দিয়ে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে মাসাজ করতে হবে। এতে মাথার ত্বকের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া দিনে কয়েকবার মোটা দাঁতের চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়াবেন।
• ছেলেরা বেশিরভাগ সময় যে ভুলটি করে থাকে, তা হল চুলে অনেক সময় ধরে জেল বা হেয়ার স্প্রে ব্যবহার করে। এতে সহজেই চুলে ময়লা ধুলোবালি আটকে যায়। এছাড়া লম্বা সময় ধরে জেল ব্যবহার করলে মাথার ত্বকের সমস্যা হতে পারে। তাই দিনের বেলা যখন আপনার বাইরে কাজ করার সম্ভাবনা বেশি তখন জেল ব্যবহার করবেন না। আর যখনই জেল বা হেয়ার স্প্রে ব্যবহার করবেন চেষ্টা করবেন দ্রুত বাসায় ফিরে চুল ধুয়ে ফেলতে।

কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়: প্রচুর জল খেতে হবে, চা-কফি, ধূমপান ত্যাগ করতে হবে। সেলুনে অনেকে চুল কাটার পর জোরে জোরে মাথা মাসাজ করিয়ে নেয়। এতে চুলের প্রচণ্ড ক্ষতি হয়। এসব একদম করবেন না।
* নিয়মিত চুল আঁচড়াতে হবে। এতে খুশকি হবার সম্ভাবনা কমে যাবে।
* পুষ্টিকর খাবার খাওয়া প্রয়োজন। এতে মাথার ত্বক ও চুল ভালো থাকবে।
* চুল নিয়মিত পরিষ্কার করা দরকার। কারণ অপরিচ্ছন্ন চুলে খুশকি হয় বেশি।
* কিছু চর্মরোগ সাধারণভাবে দেখতে খুশকির মতো হয়। তাই মাথায় খুশকির পরিমাণ বেশি হলে চিকিত্‍সকের পরামর্শ নিতে হবে।

Trending


Would you like to receive notifications on latest updates? No Yes